সর্বশেষ সংবাদ

ad728

শুক্রবার, ২ আগস্ট, ২০১৯

পলিটেকনিকে ভর্তির সময় ৮ দিন বাড়লো

পলিটেকনিকে ভর্তির সময় ৮ দিন বাড়লো

ঢাকা : ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে পরিচালিত পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহে ভর্তি আবেদনের সময় ৮ দিন বাড়ানো হয়েছে। কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অশোক কুমার বিশ্বাস বাংলামেইলকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘১২ জুন পর্যন্ত সময় নির্ধারিত ছিল।

১৬ জুন একাদশে ভর্তির আবেদনের ফলাফল দেবে। ১২ তারিখে কারিগরিতে ভর্তির আবেদন বন্ধ করে দিলে, ওদিকে ১৬ তারিখের ফলাফলে কেউ সুযোগ না পেলে তখন দেখা যাবে তার ভর্তির আর সুযোগ থাকবে না।’ তিনি বলেন, ‘অন্তত একটা দরজা তো খোলা রাখতে হবে। যাতে কোনো শিক্ষার্থী বিপদে না পড়ে। আমরা মিটিংয়ে বসেছিলাম। এ বিষয়ের উপর ভিত্তি করে ২০ জুন পর্যন্ত আবেদনের সময় বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

 ২৬ জুন মনোনীতদের মেধাক্রম অনুযায়ী তালিকা প্রকাশ করা হবে। মেধা তালিকার ভর্তি ২৭-৩০ জুন। অপেক্ষমান তালিকা থেকে ভর্তি ২-২৫ জুলাই পর্যন্ত। ক্লাস শুরু ১৬ আগস্ট থেকে। ভর্তি সংক্রান্ত সব তথ্য কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে (www.techedu.gov.bd) দেয়া আছে।

ঢাকা : ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে পরিচালিত পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহে ভর্তি আবেদনের সময় ৮ দিন বাড়ানো হয়েছে। কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অশোক কুমার বিশ্বাস বাংলামেইলকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘১২ জুন পর্যন্ত সময় নির্ধারিত ছিল।

১৬ জুন একাদশে ভর্তির আবেদনের ফলাফল দেবে। ১২ তারিখে কারিগরিতে ভর্তির আবেদন বন্ধ করে দিলে, ওদিকে ১৬ তারিখের ফলাফলে কেউ সুযোগ না পেলে তখন দেখা যাবে তার ভর্তির আর সুযোগ থাকবে না।’ তিনি বলেন, ‘অন্তত একটা দরজা তো খোলা রাখতে হবে। যাতে কোনো শিক্ষার্থী বিপদে না পড়ে। আমরা মিটিংয়ে বসেছিলাম। এ বিষয়ের উপর ভিত্তি করে ২০ জুন পর্যন্ত আবেদনের সময় বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

পলিটেকনিকে ভর্তির সময় ৮ দিন বাড়লো

 ২৬ জুন মনোনীতদের মেধাক্রম অনুযায়ী তালিকা প্রকাশ করা হবে। মেধা তালিকার ভর্তি ২৭-৩০ জুন। অপেক্ষমান তালিকা থেকে ভর্তি ২-২৫ জুলাই পর্যন্ত। ক্লাস শুরু ১৬ আগস্ট থেকে। ভর্তি সংক্রান্ত সব তথ্য কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে (www.techedu.gov.bd) দেয়া আছে।

ঢাকা : ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে পরিচালিত পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহে ভর্তি আবেদনের সময় ৮ দিন বাড়ানো হয়েছে। কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অশোক কুমার বিশ্বাস বাংলামেইলকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘১২ জুন পর্যন্ত সময় নির্ধারিত ছিল।

১৬ জুন একাদশে ভর্তির আবেদনের ফলাফল দেবে। ১২ তারিখে কারিগরিতে ভর্তির আবেদন বন্ধ করে দিলে, ওদিকে ১৬ তারিখের ফলাফলে কেউ সুযোগ না পেলে তখন দেখা যাবে তার ভর্তির আর সুযোগ থাকবে না।’ তিনি বলেন, ‘অন্তত একটা দরজা তো খোলা রাখতে হবে। যাতে কোনো শিক্ষার্থী বিপদে না পড়ে। আমরা মিটিংয়ে বসেছিলাম। এ বিষয়ের উপর ভিত্তি করে ২০ জুন পর্যন্ত আবেদনের সময় বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

 ২৬ জুন মনোনীতদের মেধাক্রম অনুযায়ী তালিকা প্রকাশ করা হবে। মেধা তালিকার ভর্তি ২৭-৩০ জুন। অপেক্ষমান তালিকা থেকে ভর্তি ২-২৫ জুলাই পর্যন্ত। ক্লাস শুরু ১৬ আগস্ট থেকে। ভর্তি সংক্রান্ত সব তথ্য কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে (www.techedu.gov.bd) দেয়া আছে।

রবিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯

ভালোবাসার দিনে....দেখতে আসুন আপডেট-খবর

ভালোবাসার দিনে....দেখতে আসুন আপডেট-খবর

এ শুধু ভালোবাসার দিন। মডেল: রাকিবা ও নীল, শাড়ি: অন্যমেলা, পাঞ্জাবি: অঞ্জন’স, সাজ: পারসোনা, স্থান কৃতজ্ঞতা: ক্রিকেটার্স কিচেন, ছবি: সুমন ইউসুফছেলেটির পরনে পাঞ্জাবি আর মেয়েটির নিশ্চিত লাল শাড়ি। দেখা হোক কোনো প্রকৃতির ছায়ায় কিংবা আধুনিক রেস্তোরাঁয়। চোখের ভাষায় প্রকাশ পাবে শুধুই ভালোবাসা। প্রতিদিনই ভালোবাসার দিন। তবে ১৪ ফেব্রুয়ারি, সেটা প্রকাশের মাধ্যমে খুঁজে পাওয়া যায় অন্য রকম আমেজ ও আনন্দ।

ভালোবেসে উপহারকী থাকতে পারে সেই বাক্সে? চলুন ভাবা যাক। হতে পারে বড় প্যাকেটটিতে ছেলেটির জন্য অপেক্ষায় আছে একটি নতুন পাঞ্জাবি আর মেয়েটির জন্য ছেলেটির নিজের পছন্দে কেনা কোনো শাড়ি। হয়তো মেয়েটির প্রিয় শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের কবিতা আর ছেলেটির হুমায়ূন আহমেদ। চলছেই তো বইমেলা। হয়তো সেই ভালো লাগার বইগুলোই অদলবদল হয়ে গেছে ভালোবাসার দিনে। আবার হয়তো মেয়েটি খুব ভালোবাসে চমক। নিত্যনতুন রোমাঞ্চ টানে তাকে খুব। তার জন্য থাকতে পারে ছেলেটির নিজের হাতে ভালোবাসা দিয়ে বানানো কার্ড। যার পরতে পরতে নতুন রোমাঞ্চ। সঙ্গে নিজেদের প্রিয় কিছু ছবি আর মনের ছোট ছোট কথা।
জিম আর ডেলার সেই গল্পের মতো ছেলেটি হয়তো বেছে বেছে মেয়েটির জন্য কিনেছে চুলের কোনো অনুষঙ্গ আর মেয়েটি কিনেছে একখানা সুন্দর ঘড়ি। কাঠের ফ্রেমে খোদাই করা দুজনের প্রিয় কোনো ছবিও থাকতে পারে উপহারের তালিকায়।
হয়তো মেয়েটি একটু রাবীন্দ্রিক আর ছেলেটি বোহিমিয়ান। রবীন্দ্রপ্রেমী মেয়েটিকে হয়তো ছেলেটি দিতে চায় রবীন্দ্রসংগীতের কোনো সংগ্রহ আর মেয়েটি ছেলেটিকে দিয়েছে জীবনকে সহজ করার মতো কোনো যন্ত্র।
উপহারে থাকুক ভালোবাসার চমক। পাঞ্জাবি: আর্ট অব ব্লু, কামিজ: অঞ্জন’সউপহারে থাকুক ভালোবাসার চমক। পাঞ্জাবি: আর্ট অব ব্লু, কামিজ: অঞ্জন’সহতে পারে একদমই ঘরোয়া কিছুও। মেয়েটি বাসা থেকে নিজ হাতে বানিয়ে এনেছে ছেলেটির পছন্দের খাবার আর ছেলেটি এনেছে মেয়েটির প্রিয় চকলেট। বাক্সে থাকতে পারে ছোট্ট কোনো সাজ–অনুষঙ্গও। হতে পারে দুজনেই দুজনের জন্য কিনেছে তেমন প্রিয় অথবা প্রয়োজনীয় কিছু। বাক্সে থাকতে পারে নিত্যপ্রয়োজনীয় কিছুও। অনেক দিন ধরেই যেটা দুজনে কিনবে কিনবে করেও কেনা হচ্ছিল না।
তবে মোড়ানো ওই বাক্সে উপহার যেটাই থাক, সেটাকে একটু যত্ন করে কেনা, পছন্দ–অপছন্দ মাথায় রেখে কেনা আর ভালোবেসে মুড়িয়ে দিলে অন্যজনের কাছে আকর্ষণ বেড়ে যায় বহুগুণ।
সঙ্গীকে আরেকটু বেশি চমকে দিতে চাইলে না হয় ভিন্ন কিছু ভাবুন। পরিকল্পনা করতে পারেন কোনো রোমান্টিক ক্যান্ডেল লাইট ডিনার ডেটেরও। আসলে প্রতিটি দিনই তো ভালোবাসার দিন। কিন্তু নাগরিক ব্যস্ততার জীবনে রোজ রোজ উদ্‌যাপনের সুযোগ কোথায়? সেখানে একটি বিশেষ দিনকে ভালোবাসার দিন হিসেবে কাটানো মন্দ নয়। তবে সব ছাড়িয়ে উপহারই কী পারে মন ভরাতে? তার থেকে বরং একটু বাড়তি ভালোবাসা দিয়েই সম্ভব ভালোবাসার সম্পর্কে নতুন করে রং ছড়ানো। তাই উপহার দিন, তবে সঙ্গে সম্পর্কেও জুড়ে দিন বাড়তি ভালোবাসার ছোঁয়া।
বসন্তের পোশাকে....দেখতে আসুন আপডেট-খবর

বসন্তের পোশাকে....দেখতে আসুন আপডেট-খবর

বসন্তের রঙে রাঙা পোশাক। মডেল: লিসা ও অতশি, শাড়ি: দেশাল, সাজ: অরা বিউটি লাউঞ্জ, ছবি: কবির হোসেনবসন্তের রঙে রাঙা পোশাক। মডেল: লিসা ও অতশি, শাড়ি: দেশাল, সাজ: অরা বিউটি লাউঞ্জ, ছবি: কবির হোসেন
আসছে ঋতুরাজ বসন্ত। গানের কথার মতো ‘ফাগুন লেগেছে বনে বনে’। গাছে গাছে, আড়ালে আড়ালে, কোণে কোণে ফুটতে শুরু করেছে কৃষ্ণচূড়া, শিমুল, পলাশ, হলুদ গাঁদা ফুল। বসন্তবরণে সবাই নানা নকশার পোশাক পরে বেরিয়ে পড়েন নানা অনুষ্ঠান আয়োজনে। সবার কথা মাথায় রেখেই সাজ সাজ রবে সেজে উঠেছে ফ্যাশন হাউসগুলো। 
বসন্তের পোশাক আয়োজন নিয়ে অঞ্জন’সের স্বত্বাধিকারী শাহীন আহমেদ বলেন, ‘আমরা সব সময় জ্যামিতিক মোটিফ নিয়ে বেশি কাজ করে থাকলেও এবার ফুলের নকশাকেই বেশি প্রাধান্য দিয়েছি। বসন্তে শাড়ি–পাঞ্জাবি পরতে পছন্দ করেন অনেকে। শাড়ি–পাঞ্জাবিতে উৎসবের রং হিসেবে হলুদ, বাসন্তীর সঙ্গে কমলা, সবুজ, জলপাই রংগুলোকে বেছে নেওয়া হয়েছে।’
এ সময় আরাম পাওয়া যাবে সুতির পোশাকে। পোশাক: দেশাল ও অঞ্জন’সএ সময় আরাম পাওয়া যাবে সুতির পোশাকে। পোশাক: দেশাল ও অঞ্জন’সশাহীন আহমেদ বলেন, ছেলেরা অন্য সময় ফুলেল মোটিফ এড়িয়ে চললেও এ সময়ে বেশ পছন্দ করে। পাঞ্জাবিতেও জায়গা করে নিয়েছে ফুলেল নকশা। এ ছাড়া শাড়ি, পাঞ্জাবিতে ব্লক, স্ক্রিন প্রিন্ট এবং এমব্রয়ডারির কাজও আছে। পোশাকগুলো সুতি কাপড়েই তৈরি করা হয়েছে। তবে কিছু লিনেন এবং সুতি সিল্কে তৈরি।
মডেল: শুভ, পোশাক: রঙ বাংলাদেশমডেল: শুভ, পোশাক: রঙ বাংলাদেশবসন্ত বসন নিয়ে দেশালের স্বত্বাধিকারী ইশরাত জাহান বলেন, এই প্রকৃতিতে রবিগুরুর ‘ফুলে ফুলে ঢলে ঢলে বহে কিবা মৃদু বায়’ গানটি মনের ভেতর বাজতে থাকে। এই ছাপ পড়ে পোশাক নকশা করার ক্ষেত্রেও। চঞ্চল প্রকৃতির আয়োজনে চারপাশে যেসব রং খেলা করে, সে রংগুলোকেই বেছে নেওয়া হয়েছে বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসগুলোর পোশাকে। সবুজ, বাসন্তী, হলুদ, লেমন, কচি কলাপাতা রং ও সবুজের কয়েক রকমের শেড ব্যবহার করা হয়েছে। নকশায় প্রাধান্য পেয়েছে ফুল, লতাপাতার বাহার। শাড়ির জমিনের কোথাও আছে এক থোকা ফুল বা কোথাও একগুচ্ছ পাতা। আবার কোথাও কবিতা বা গানের লাইন এঁকে সুতি, লিনেন, তাঁত ইত্যাদি কাপড়ের শাড়িতে আনা হয়েছে বাংলা প্রকৃতির আদল। ওড়না, কামিজ-সালোয়ারেও রয়েছে রং, নকশার খেলা। এবারে কিছু কিছু কামিজের ঝুলে নকশা কম থাকলেও সেখানে জায়গা করে নিয়েছে এমব্রয়ডারি বা হাতে করা সুতার কাজের নকশা।
বড় ধরনের দরপতন, বেড়েছে লেনদেন...দেখতে আসুন আপডেট-খবর

বড় ধরনের দরপতন, বেড়েছে লেনদেন...দেখতে আসুন আপডেট-খবর

বড় ধরনের দরপতনের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লেনদেন। তবে গত কার্যদিবসের (বৃহস্পতিবার) তুলনায় বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। আজ রোববার সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে ডিএসইএক্স কমেছে ৪৮ পয়েন্ট, অবস্থান করছে ৫ হাজার ৭৬৩ পয়েন্টে। গত কার্যদিবসের তুলনায় লেনদেন বেড়েছে ৪০ কোটি টাকা।
ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, আজ মোট লেনদেন হয়েছে ৮১২ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। হাতবদল হওয়া শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭২টির, কমেছে ২৪৭টির আর দর অপরিবর্তিত আছে ২৯টির। গত কার্যদিবসে লেনদেন শেষে ডিএসইএক্স সূচক বাড়ে ২৫ পয়েন্ট। মোট লেনদেন হয় ৭৭২ কোটি ৯৭ লাখ টাকা।
আজ লেনদেনের শীর্ষে যে ১০ কোম্পানি রয়েছে, সেগুলো হলো ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি, মুন্নু সিরামিকস, ফরচুন, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড, লিগ্যাসি ফুটওয়্যার, জেনেক্স ইনফোস, মুন্নু স্টাফলার, পাওয়ার গ্রিড, সিঙ্গারবিডি ও সোনার বাংলা ইনস্যুরেন্স।

দর বাড়ার শীর্ষে যে ১০ কোম্পানি, সেগুলো হলো ফরচুন, জেএমআই সিরিঞ্জেস, স্টাইল ক্র্যাফট, মারিকো, এরামিট, রেনেটা, মুন্নু সিরামিকস, আইসিবিএএমসি সেকেন্ড মিউচুয়াল ফান্ড, ন্যাশনাল লাইফ ইনস্যুরেন্স ও ফাইন ফুডস।
দর কমার শীর্ষে যে ১০ কোম্পানি, সেগুলো হলো বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইনস্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, সেন্ট্রাল ইনস্যুরেন্স, ফেডারেল ইনস্যুরেন্স, গ্লোবাল ইনস্যুরেন্স, অগ্রণী ইনস্যুরেন্স, কন্টিনেন্টাল ইনস্যুরেন্স, জেনেক্স ইনফোস, ইস্টল্যান্ড, জনতা ইনস্যুরেন্স ও কর্ণফুলী।
অন্যদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৮৫ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৭ হাজার ৫৯৬ পয়েন্টে। লেনদেনে অংশ নেওয়া কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডগুলোর মধ্যে দর বেড়েছে ৬৬টির, কমেছে ১৮৮টির, অপরিবর্তিত রয়েছে ২৩টির।
নালিশ আর মামলা বিএনপির শেষ ভরসা: কাদের.....দেখতে আসুন আপডেট-খবর

নালিশ আর মামলা বিএনপির শেষ ভরসা: কাদের.....দেখতে আসুন আপডেট-খবর


ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবিওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবিআওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির আন্দোলন করার মতো সামর্থ্য নেই, তাই নালিশ আর মামলাই তাদের শেষ ভরসা।
আজ রোববার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ কথা বলেন কাদের। তিনি উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে দলীয় প্রার্থীদের নাম ঘোষণার পর এ মন্তব্য করেন। 

ওবায়দুল কাদের বলেন, যেকোনো নির্বাচনের ফল নিয়ে যে কারোরই মামলা দায়েরের অধিকার রয়েছে। জাতীয় নির্বাচনের ফল নিয়ে জেলা পর্যায়ে বিএনপির মামলা করার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই।
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পাওয়া এক প্রার্থীর বিষয়ে অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখব। তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সত্য হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

পৌরসভার মেয়র বা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন কি না? এ বিষয়ে কাদেরের কাছে জানতে চাওয়া হয়। এর উত্তরে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের আইনের ব্যত্যয় যেন না হয়, সে জন্য আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। সে জন্যই আমরা জাতীয় নির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যান এবং মেয়রদের দলীয় মনোনয়ন দিইনি।’ তিনি আরও বলেন, ‘উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও আমরা মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদের কোনো চেয়ারম্যানকে মনোনয়ন দিইনি। তারপরও কোনো অভিযোগ পেলে আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।’
এ সময় সাংবাদিকের অপর এক প্রশ্নের সেতুমন্ত্রী কাদের বলেন, ‘গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) অনুযায়ী, আমরা শতকরা ৩৩ ভাগ নারী প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আরপিওর ধারাটি পুরোপুরিভাবে পালন করার টার্গেট রয়েছে।’
ওবায়দুল কাদের বলেন, ২২ ফেব্রুয়ারি তৃতীয়, ২৩ ফেব্রুয়ারি চতুর্থ এবং জুন মাসে পঞ্চম ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হবে।
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।
তাঁর নাম বলতেই এক বছর কেটে যায়!....দেখতে আসুন আপডেট-খবর

তাঁর নাম বলতেই এক বছর কেটে যায়!....দেখতে আসুন আপডেট-খবর


তাঁর নাম বলতে গেলে বিপত্তি আছে! সংগৃহীত ছবিতাঁর নাম বলতে গেলে বিপত্তি আছে! সংগৃহীত ছবি২০ বছর বয়সী এক স্ট্রাইকার আপাতত ট্রায়াল দিচ্ছেন আর্জেন্টিনার ক্লাব সান লরেঞ্জোতে। কোচ হোর্হে আলমিরনের ব্যক্তিগত অনুরোধ বলেই কলম্বিয়া থেকে ডেকে আনা হয়েছে এই স্ট্রাইকারকে। কিন্তু তাঁর নাম ধরে ডাকতে গেলেই বিপত্তি। এমনই সে নাম, তাঁকে পাস দেওয়ার জন্য ডাকতে ডাকতেই প্রতিপক্ষ বল কেড়ে নিতে পারে!
তাঁর পারিবারিক উপাধিটা নতুন কিছু নয়। স্প্যানিশ বা পর্তুগিজ ভাষাভাষীদের মধ্যে খুবই পরিচিত এক নাম, গঞ্জালেজ। কিন্তু তাঁর প্রথম নামটাই ঝামেলা বাধাচ্ছে। নামের ইংরেজি অক্ষরগুলো যখন পাশাপাশি লেখা হয়, মনে হয় মাত্রই লিখতে শিখেছে কেমন কোনো শিশু খেয়ালখুশি মতো একটানা কিছু অক্ষর লিখে গেছে। বলেই ফেলা যাক নামটি, ইএফএমএএমজেজেএএসওএনডি! কাছাকাছি বাংলা উচ্চারণযোগ্য খুশি মুখে আনতে চাইলে, এফম্যাম্‌হাসন্দ!
স্প্যানিশ ভাষাভাষীদের কাছেও নামটি অদ্ভুত। তবে তারা অন্তত এমন নামের অর্থ খুঁজে পাবেন। কারণ গঞ্জালেজের এই নাম দিয়ে আসলে পুরো এক বছরের কথা বলা হয়েছে। স্প্যানিশ ভাষায় বছরের ১২টি মাসের প্রথম অক্ষর বেছে নিয়েই এ নাম দেওয়া হয়েছে গঞ্জালেজকে। প্রথম মাস এনেরো থেকে ই, ফেব্রো থেকে এফ, মার্জো থেকে এম, এব্রিল থেকে এ, মায়ো থেকে নেওয়া হয়েছে এম। জুনিও ও জুলিও থেকে দুটি জে, অগস্তো থেকে এসেছে এ, সেপ্টিয়েম্ব্রে থেকে এস। অক্টুব্রে থেকে ও, নভিয়েম্ব্রে থেকে এন এবং ডিসিয়েম্ব্রে থেকে এসেছে ডি। এসব মিলিয়েই ইএফএমএএমজেজেএএসওএনডি বা এফম্যাম্‌হাসন্দ। যদিও অন্যদের সুবিধার্থে হাসন্দ নামেই পরিচয় দেন।
১৮ বছর বয়সেই কলম্বিয়াতে আলো ছড়িয়েছেন হাসন্দ। কোচ হোর্হে আলমিরনের অধীনে অ্যাটলেটিকো ন্যাসিওনালের হয়ে গ্রেমিওর মতো দলের বিপক্ষে গোলও করেছেন। কোচ আলমিরন অ্যাটলেটিকো ছেড়ে এই নভেম্বরেই সান লরেঞ্জোর দায়িত্ব নিয়েছেন। কোচের ডাকে বুয়েনেস এইরেসে হাজির হয়েছেন হাসন্দ। তবে বানান নয়, পায়ের কাজেই মানুষের কাছে নিজের নামটা স্মরণীয় করে রাখতে চাইবেন হাসন্দ।
দুর্ঘটনায় ফেরদৌস ও পূর্ণিমা আহত.....দেখতে আসুন আপডেট-খবর

দুর্ঘটনায় ফেরদৌস ও পূর্ণিমা আহত.....দেখতে আসুন আপডেট-খবর


পূর্ণিমা ও ফেরদৌস
পূর্ণিমা ও ফেরদৌসচিত্রনায়ক ফেরদৌস আর চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। আজ রোববার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে নোয়াখালীর চরমণ্ডলে। সেখানে ‘গাঙচিল’ ছবির শুটিং করছেন তাঁরা। ছবিটির পরিচালক নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূল প্রথম আলোকে বলেন, ‘আজ সকালে মোটরসাইকেলের একটি দৃশ্যের শুটিং হচ্ছিল। গতকাল শনিবার এই দৃশ্যের শুটিং হয়েছে। কিছু কাজ বাকি ছিল। সেটাই আজ করা হয়। মোটরসাইকেল চালাচ্ছিলেন পূর্ণিমা। পেছনে বসে ছিলেন ফেরদৌস। কিছু বুঝে ওঠার আগেই রাস্তায় স্লিপ কেটে তাঁদের মোটরসাইকেল উল্টে যায়। ফেরদৌস আর পূর্ণিমা ছিটকে গিয়ে রাস্তার পাশে পড়ে যান। দুজন যথেষ্ট ব্যথা পেয়েছেন। দুজনেরই শরীরের কিছু স্থানে কেটে গেছে। সেখান থেকে রক্ত ঝরেছে। তাঁদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।’
আজ দুপুরে নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূলের সঙ্গে যখন কথা হয়, তখন ফেরদৌস আর পূর্ণিমাকে বসুরহাট সেন্ট্রাল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তিনি আরও জানালেন, ঘটনার পর ফেরদৌস আর পূর্ণিমাকে বিশ্রামে রাখা হয়। কিন্তু ব্যথা বেড়ে যাওয়ায় তাঁদের হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে।
পূর্ণিমা ও ফেরদৌসএরপর কথা হয়েছে ফেরদৌসের সঙ্গেও। তিনি বলেন, ‘প্রচণ্ড ব্যথা পেয়েছি। পূর্ণিমাও। আমি ব্যথা পেয়েছি সোল্ডারে আর পূর্ণিমা পায়ে। দুজনেরই খুব ব্যথা হচ্ছে। পূর্ণিমার পা ফুলে গেছে। হাসপাতালে যাচ্ছি। দেখি ডাক্তার কী বলেন।’

৬ ফেব্রুয়ারি থেকে চরমণ্ডল আর চর এলাহিতে ‘গাঙচিল’ ছবির শুটিং করছেন ফেরদৌস আর পূর্ণিমা। গতকাল তাঁদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন আনিসুর রহমান মিলন। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের উপন্যাস ‘গাঙচিল’ নিয়ে ছবিটি তৈরি করছেন নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূল।